শিবানী পীঠ | Shibani Pith

শিবানী পীঠ হল দেবী শিবানীর মন্দির।দেবী শিবানী মা কালিরই একটি অংশ।খুবই জাগ্রত মন্দির বলে প্রচুর ভক্ত এখানে আসেন তাদের মনষ্কামনা পূরণের উদ্দেশ্যে।বিশেষ বিশেষ দিনে খুবই ভীড় হয় এখানে।শণি,মঙ্গলবার ও অমাবশ্যার দিনে এখানে প্রচুর ভক্ত সমাগম ঘটে। দক্ষিণ ২৪ পরগণার বারুইপুরে অবস্থিত এই মন্দিরটি সাধারণ মানুষের কাছে অতি পরিচিত। ভারী সুন্দর এই মন্দিরের পরিবেশটা ।ভট্টাচার্য্য পরিবারের এই মন্দিরটি স্থাপিত হয়েছিল ১৯৬৬ সালের কালিপূজার দিন। প্রতিষ্ঠা করেছিলেন শ্রী দূর্গাদাস ভট্টাচার্য্য মহাশয়। বর্তমানে তিনি দেহ রেখেছেন।মন্দিরের ভেতরে ওনার বেশ কয়েকটি মূর্তি বর্তমান। এখানে নাট মন্দিরের ভেতরে অনেক মুণি ঋষিদের মূর্তি বর্তমান।নাটমন্দিরে বসে একমনে মায়ের দিকে তাকিয়ে থাকলে মনে প্রশস্তি পাওয়া যায়।

কোথায় অবস্থিত?

এটি বারুইপুর ২১৮ বাসস্ট্যান্ডের কাছেই অবস্থিত। কাছেই রয়েছে বারুইপুর স্টেট জেনারেল হসপিটাল। এর ঠিকানা শিবানী পীঠ লেন,বারুইপুর-কুলপী রোড,সুবুদ্দিপুর,বারুইপুর,পিন-৭০০১৪৪।

এখানকার দূর্গাপূজা

এখানে ধূমধাম ও নিষ্ঠাভরে দূর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হয়।শিবানীপীঠে দুর্গাপ্রতিমাকে গণেশ জননী রূপে পুজো করা হয়। রথের দিন কাঠামো পুজোর মাধ্যমে মূর্তি গড়ার কাজ শুরু হয়। ষষ্ঠীর দিন পুজো শুরু হয়। সপ্তমী, অষ্টমী ও নবমীতে দেবীকে আমিষ ভোগ নিবেদন করা হয়। এখানে পুজোয় বলির বদলে রুই মাছ উৎসর্গ করা হয়।শিবানীপীঠে কুমারী পুজো এবং সধবা পুজোও হয়। পুজোর তিন দিন দুপুরে সকলকে খাওয়ানো হয়। দশমীর দিনই নিয়ম মেনে প্রতিমা বিসর্জন দেওয়া হয় ।

কিভাবে যাবেন?

গড়িয়া থেকে ১৬ কি মি দূরে অবস্থিত এই শিবানীপীঠ। ট্রেন এ শিয়ালদহ থেকে বজবজ ,ক্যানিং বাদে সাউথ সেকশন এর যেকোনো ট্রেনে চেপে আসুন বারুইপুরে।এরপর সেখান থেকে বাস,অটো বা টোটোতে চেপে সোজা শিবানীপীঠ।সময় লাগে ৮-১০ মিনিট। আর গাড়িতে এলে বারুইপুর বাইপাস দিয়ে বারুইপুর রেল ব্রিজ টপকে বারুইপুর কুলপি রোড ধরে ২ মিনিট গেলেই শিবানী পীঠ ।

  মা শিবানীর মন্ত্র

ॐ 卐 জয় মা শিবানী 卐 ॐ

মন্দিরের নিয়মকানুন

  • মন্দির বন্ধ থাকে সকাল ১১.১৫ থেকে ১২.০০ টা পর্যন্ত। ডিসেম্বর ও জানুয়ারী মাসে শণিবার,রবিবার ও অন্যান্য ছুটির দিন সময় বেড়ে ১২.০০টার জায়গায় ১.৩০টা হয়।
  • মন্দিরের ভেতর মোবাইল ফোনটি বন্ধ বা নিরব করে রাখুন।