) ডায়মন্ড হারবার

দক্ষিণ ২৪ পরগণাতে অবস্হিত ডায়মন্ড হারবার। ডায়মন্ড হারবার স্টেশনে নেমে কাছাকাছি বেশ কয়েকটি জায়গায় আপনি পিকনিক করতে পারেন। ডায়মন্ডহারবার হল রেলওয়ে পথে প্রান্তিক স্টেশন। ডায়মন্ড হারবার স্টেশনের কাছাকাছি অবস্হিত পুরাতন কেল্লা, জেটি ঘাট। শীতের মরসুমে এখনো প্রচুর লোক এখানে পিকনিক করতে আসে। গাড়ী রাখার ব্যাবস্হা আছে। এখানে খাওয়ার দাওয়ারের জন্য ছোটো বড় অনেক রেস্ট্রুরেন্ট আছে। আপনি শিয়ালদহ থেকে ডায়মন্ডহারবার লোকালে সোজা চলে আসুন ডায়মন্ডহারবার স্টেশনে। সেখান থেকে টোটো,ভ্যান রিক্সায় পৌছে যাবেন পুরাতন কেল্লা ও জেটি ঘাট। আবার রাস্তায় ডায়মন্ডহারবার রোড বরাবর গেলে পৌছে যাবেন ডায়মন্ডহারবার। কলিকাতা থেকে প্রচুর বাস ডায়মন্ড হারবার যায়।

কলিকাতা থেকে এর দুরত্ব প্রায় ৪৬ কলোমিটারের মতো। সময় লাগে ২.০০ ঘন্টার মতো। দূরদুরান্ত থেকে লোক এখানে আসে পিকনিক করতে বা ঘুরতে। জনপ্রিয় পিকনিক স্পটের একটি হল এটি। গঙ্গার চড়ায় এখানে প্রচুর মানুষ পিকনিক করতে আসেন। পিকনিক করতে এসে সারাটি দিন কাটিয়ে যাওয়ার জন্য ডায়মন্ডহারবার অসাধারণ জায়গা। আপনি গঙ্গার বুকে নৌকা বা লঞ্চে ভ্রমণ করতে পারবেন বা পারাপার করতে পারবেন। অসাধারণ অভিজ্ঞতা হবে। এখানে থাকার জন্য বেশ কিছু হোটেল ও রিসোর্ট আছে। আপনি সপ্তাহ শেষের দুটি দিন নিরিবিলিতে কাটিয়ে আসতে পারেন।

)ডাবু:

দক্ষিণ ২৪ পরগণার ক্যানিং এর কাছাকাছি অবস্হিত ডাবু। আপনি শিয়ালদহ থেকে ক্যানিং লোকালে সোজা চলে আসুন ক্যানিং স্টেশনে। সেখান থেকে অটো, টোটোতে চেপে পৌছিয়ে যাবেন ডাবু। ক্যানিং রেলওয়ে স্টেশন থেকে ১১ কিলোমিটার দূরে অবস্হিত এই পিকনিক স্পটটি। এছাড়া গাড়ী নিয়ে সরাসরি পৌছে যাবেন ডাবু। মাতলা নদীর তীরে অবস্হিত ডাবু একটি অতি সুন্দর জায়গা। মাতলার তীরে এই জায়গায় প্রচুর মানুষ পিকনিক করতে আসেন। খুবই জনপ্রিয় পিকনিক স্পট। চারিদিকে সবুজের সমারোহ। পিকনিক করতে এসে সারাটি দিন কাটিয়ে যাওয়ার জন্য ডাবু ভাল জায়গা। কলিকাতা থেকে এর দুরত্ব প্রায় ৬৪ কলোমিটারের মতো। সময় লাগে ২.৩০ ঘন্টার মতো। নিকটবর্তী মানুষজন তো আছেই এখন দূরদুরান্ত থেকে লোক এখানে আসে পিকনিক করতে বা ঘুরতে। শীতের সময় এখানে ভাল ভীড় হয়। নদীর আশেপাশে বেশ কিছু পিকনিক স্পট আছে। গাড়ী পার্কিং এর ব্যবস্হা আছে। আপনি মাতলার বুকে নৌকায় বা বোটে ভ্রমণ করতে পারবেন। ডাবুতে মাতলার ধার ঘেষে একটি ছোটো বাগান রয়েছে। সেখান থেকে মাতলাকে অতি সুন্দর দেখায়। বিভিন্ন ধরনের পাখির কোলাহল শুনতে ভাল লাগে।

যোগাযোগ:-এখানে পিকনিক করতে হলে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের ইরিগেশন দপ্তর থেকে মত নিতে হবে। এখানে থাকার জন্য ইরিগেশন দপ্তরের বাংলো আছে।