স্বাধীনতা সংগ্রামে অংশ নেওয়া কিছু অনামী বিপ্লবীর আত্মত্যাগ

কালীপদ ভট্টাচার্য্য : ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা সংগ্রামের বিভিন্ন কর্মকান্ডের সঙ্গে গভীরভাবে যুক্ত ছিলেন। টিটাগড় ষড়যন্ত্র মামলায় পুলিশ তাকে অন্যতম আসামী হিসেবে অভিযুক্ত করেছিল। বিদেশী শাসকদের অঙ্গুলীহেলনে পরচালিত আদালতের বিচারে দীর্ঘকাল তিনি কারাবাসের যন্ত্রণা ভোগ করেছিলেন।

বিভূতিভূষণ সেন : কৈশোর উত্তীর্ণকালে বিপ্লবী ‘যুগান্তর’ দলের সঙ্গে যুক্ত হয়ে স্বাধীনতা সংগ্রামে অংশগ্রহণ করেছিলেন। বিভিন্ন সময়ে তিনি ব্রিটিশ বিরোধী বৈপ্লবিক কর্মকান্ডে অংশগ্রহণের অপরাধে লাঞ্ছনা ভোগ করেন। সংগ্রামের এক পর্যায়ে তিনি আন্দামান সেলুলার জেলে নির্বাসিত হন।

বিনোদবিহারী দত্ত : ১৯৩০ সালে মাস্টারদা সূর্য সেনের নেতৃত্বে সংগঠিত চট্টগ্রামের যুব বিদ্রোহ এবং অস্ত্রাগার অভিযানের অন্যতম নেতা ছিলেন বিনোদবিহারী। চট্টগ্রামের জালালাবাদ পাহাড়ে সশস্ত্র ব্রিটিশ সেনাবাহীনির সাথে সম্মুখ যুদ্ধে গুলিবিদ্ধ হয়ে তিনি গুরুতর ভাবে আহত হন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তিনি পালিয়ে যেতে সমর্থ হন। চট্টগ্রাম যুব বিদ্রোহ, মাস্টারদা সূর্য সেনের বিপ্লবী স্মৃতি স্বাধীন দেশে অক্ষুন্ন এবং অক্ষয় করার কাজে তিনি সর্বদাই তৎপর ছিলেন।

ভবানীপ্রসাদ গোস্বামী :  জন্ম মেদিনীপুর জেলায়। পিতার নাম বিরেন্দ্র কুমার গোস্বামী। মা চারুশীলাদেবী। অত্যন্ত দৃঢ়চেতা এই স্বাধীনতা সংগ্রামী এবং সশস্ত্র বিপ্লবপন্থায় বিশ্বাসী দেশনেতৃ। তিনি ছিলেন উনবিংশ শতাব্দীর অগ্রগণ্য বাঙালী মণিষী এবং সারস্বত সাধক ভূদেব মুখোপাধ্যায়ের প্রথম ছাত্রী। ভবানীপ্রসাদ ছিলেন তাঁর আদর্শ ও সত্যনিষ্ঠ সন্তান। খুব অল্প বয়েসেই তিনি তাঁর মায়ের বিপ্লবী তেজস্বীতার প্রেরণায় সশস্ত্র স্বাধীনতা সংগ্রামীদের উপর ইংরেজ শাসকদের প্রতিহিংসা মূলক  আচড়ণের উপযুক্ত জবাব দিতে তিনি ব্রিটিশ রাজপুরুষদের নিধন করবার কাজে আত্মনিয়োগ করেন। তৎকলীন মেদিনীপুরে তিনজন উদ্ধত বর্বর জেলাশাসক পেডি, বার্জ ও ডগলাসকে হ্যার ব্যাপারে অন্তত্য গৌরবাজ্জ্বল ভূমিকা পালন করেছিলেন। অবশ্য অভিযোগ দায়ের করলেও সরকার তাঁকে হত্যাকারী বলে প্রমাণ করতে পারে নি। রাষ্ট্রের সন্ত্রাসবাদী দৌরাত্বের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ ও প্রতিরোধ গড়ে তোলবার অপরাধে শাসকদের আজ্ঞাবাহী আদালত এবং তাদের পদলেহী বিচারকের দল বেশ কয়েকবার তাঁকে কারাদন্ডে দন্ডিত করেছিলেন। দেশের মুক্তির জ্য তিনি ও তাঁর মা অশেষ দুঃখ ও যন্ত্রনা ভোগ করেছিলেন হাসিমুখে।

লেখক: সুপ্রতীপ দেবদাস