পেঁপে  সব্জী না ফল?

পেঁপে সাধারণত সারা বছর পাওয়া যায়। বিভিন্ন ধরনের রান্নায় পেঁপে ব্যবহৃত হয়। এর ইংরাজী নাম papaya ( পাপায়া )। এর বিজ্ঞান সম্মত নাম হল ক্যারিকা পাপায়া( carica papaya)। এর প্রথম দেখা মিলেছিল মধ্যবর্তী আমেরিকা ও দক্ষিণ মেক্সিকোর বিস্তির্ণ অঞ্চল জুড়ে। কাঁচা অবস্হায় এটি সব্জী হলেও পাকা অবস্হায় এটি ফল। দুই ধরনের পেঁপে দেখা যায়। একটি হাওয়াই পেঁপের বিভিন্ন প্রজাতি। অন্যটি মেক্সিকো প্রজাতির পেঁপে। পেঁপের মধ্যে ফাইবার থাকার কারনে এটা হজমে সহয়তা করে।

পেঁপে খাওয়ার উপকারীতা

পাকা পেঁপেতে পুষ্টি গুন অনেক

প্রতি ১০০ গ্রাম [ gm ] পাকা পেঁপেতে যা থাকে তা নিম্নরূপ:

উপাদানপরিমাণ
আমিষ০.৬ গ্রাম
স্নেহ০.১ গ্রাম
খনিজ পদার্থ০.৫ গ্রাম
ফাইবার০.৮ গ্রাম
শর্করা৭.২ গ্রাম
ভিটামিন সি৫৭ মিলিগ্রাম
সোডিয়াম৬.০ মিলিগ্রাম
পটাসিয়াম৬৯ মিলিগ্রাম
আয়রন০.৫ মিলিগ্রাম
খাদ্যশক্তি৩২ কিলোক্যালরি
  • বদহজম হলে পেঁপে ব্যবহারে উপকার মিলবে। সব্জী ব্যবহার ছাড়াও দুপুরে ভাত খাওয়ার পর এবং রাত্রিরে ভাত ও রুটি খাওয়ার পর এক টুকরো কাঁচা পেঁপে ভাল করে চিবিয়ে খেলে এবং পরে এক গ্লাস জল পান করলে সকালে পেট পরিষ্কার হয়ে যায়। অবশ্য প্রতিদিন নিয়ম করে এটা খেতে হবে। তবেই এর সুফল পাবেন।
  • যকৃত ও প্লীহা বর্ধিত হলেও পেঁপে খাওয়া উচিত। এর সঙ্গে জ্বর ও দুর্বলতার ঔষুধ হিসেবে দিনে ও রাত্রিরে খাওয়া দাওয়ার পর ৫-১০ ফোঁটা পেঁপের আঠা খেলে অনেক উপকার পাওয়া যায়। প্রতিদিন দিনে দুবার। এর নিয়মিত সেবনে প্লীহার আকৃতি কমে যায়। পেপটিন বা পেঁপের আটার গুন অনেক।
  • ঔষুধ হিসেবে পাঁকা পেঁপের থেকে কাঁচা পেঁপের গুন অনেক।
  • ক্ষিদেমন্দা বা পেট ভার ভার হলে পেঁপে নিয়মিত খেলে উপকার পাওয়া যায়।
  • যকৃতের ব্যথা বা অন্যান্য যকৃতের অসুখে পেঁপে নিয়মিত খেলে কাজ হয়।
  • এক চামচ পেঁপের দুধের সঙ্গে চিনি মিশিয়ে খেলে অজীর্ণতা থেকে মুক্তি মেলে।
  • ঘন ঘন বদহজম, পায়খানা হলে কাঁচা পেঁপে চিবিয়ে খান। এগুলি থেকে মুক্তি পাবেন।
  • জিবে সাদা পর্দা দেখা দিলে পেঁপে খেলে অনেকটা কমে।
  • যে সব মায়েদের সদ্য বাচ্চা হয়েছে কাঁচা পেঁপের তরকারী নিয়মিত খেলে তাদের স্তনের দুধ বাড়ে।
  • ৮-১০ ফোঁটা কাঁচা পেঁপের দুধ বা আঠা প্রতিদিন অল্প জলে মিশিয়ে খেলে দাদ ও চর্মরগ সারে।
  • পেঁপেতে প্রচুর পেপেন এনজাইম আছে যা মানুষের পাকস্থলীতে আমিষ হজমে সাহায্য করে।
  • নিয়মিত কাঁচা পেঁপের দুধ বা আঠা খেলে কৃমি নাশ হয়।
  • কাঁচা পেঁপের বীজ কৃমি নাশক করে।
  • পেঁপের বীজ খেলে মেয়েদের ঋতু নিয়মিত হয়। বেশী পরিমানে খেলে গর্ভপাত হয়।
ডাক্তার / লেখক / পর্যটক
ড: সুশীল চন্দ্র দাস