শব্দ দূষণ

শব্দ দূষণ হল আজকের সমাজে একটা ক্ষতিকারক দিক।মনুষ্য জীবনে এর প্রভাব মারাত্বক।বায়ু দূষণের মতো শব্দ দূষণও আমাদের চিন্তার কারণ।শব্দ দূষণ পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট করে দেয়। শুধু মানুষ বললে ভুল হবে।মানুষ সহ জীব জন্তু,সামুদ্রিক প্রাণী,গাছ পালা সবই এই শব্দদূষণের শিকার হয়।প্রয়োজনের থেকে বেশী শব্দ নির্গত হলে তা জীব জগতের পক্ষে ক্ষতিকারক।এটাই শব্দ দূষণ।

মানব সমাজে শব্দ দূষণের প্রভাব

শব্দ দূষণ আমাদের শরীর এবং ব্যবহারিক দিকে যথেষ্ট প্রভাব ফেলে।শব্দ দূষণ আমাদের শরীরের পর্যাপ্ত ক্ষতিকারক দিকটি বহন করে।অপ্রয়োজনীয় ও অযাচিত শব্দ আমাদের শারীরিক গঠনে অন্তরায় হয়ে দাঁড়ায়।শুধু তাই নয় শব্দ দূষণ আমাদের সুন্দর জীবন যাত্রা ব্যহত করে।শব্দ দূষণ অনেক সময় উচ্চ রক্ত চাপের কারণ হয়।শরীরে একটা উচ্চ মাত্রায় ক্লান্তি অনুভূত হয়।এছাড়া শব্দ দূষণ আমাদের ঘুমের ব্যঘাত ঘটায়।এরফলে সারাদিন একটা বিরক্তি ভাব দেখা যায়।শব্দদূষণ শ্রবণ শক্তির ক্ষমতাকে কমিয়ে দেয়।দীর্ঘক্ষণ শব্দ দূষণ অনেক ক্ষেত্রে আমাদের শ্রবণ মাধ্যমের জন্য ক্ষতিকারক।শুধু তাই নয় এর ফলে প্রতিদিনকার জীবন যাত্রার ক্ষেত্রে অবসন্নতা আসে।উচ্চ শব্দ দূষণের মাত্রা হৃদরোগের কারণ হতে পারে।।এছাড়াও শব্দ দূষণের ফলে মানুষের শরীরের অন্যান্য জটিল রোগগুলি দেখা যায়।

মানুষ ছাড়া অন্যান্য জীবজগতে শব্দ দূষণের প্রভাব

জন্তু জানোয়ার,পাখি এদের ক্ষেত্রেও শব্দ দূষণ ক্ষতিকারক।রাতের বেলায় পাখি সহ অন্যান্য জন্তু জানোয়ারেরা ঘুমিয়ে থাকে।অনেক সময় তারস্বরে মাইক বা বক্স বাজালে পাখি সহ জন্তু জানোয়ারেদের ঘুমের ব্যাঘাত ঘটে।শব্দ দূষণ ডলফিন সহ অন্যান্য সামুদ্রিক প্রাণীর স্বাভাবিক বেড়ে ওঠার পথে অন্তরায় হয়ে দাঁড়ায়।বিষ্ফোরণের ফলে তৈরী হওয়া শব্দ দূষণ জলের তলায় মাছ,তিমি,হাঙর,সহ,অন্যান্য সামুদ্রিক,জীব জগতের ভারসাম্য নষ্ট করে।অত্যাধিক শব্দ কম্পনের ফলে এদের মধ্যে একটা অবসাদ তৈরী হয়। এর ফলে সমুদ্রের তলদেশের সামুদ্রিক প্রাণীদের অনেকের অকাল প্রাপ্তি ঘটে।এছাড়াও জাহাজের আনাগোনার ফলে শব্দের যে উৎপওি হয় এর ফলে সামুদ্রিক জীবন বাধাপ্রাপ্ত হয়।এর ফলে বেশ কিছু সামুদ্রিক প্রাণী মারা যায়। শব্দ দূষণ শুধু আমাদেরই নয়।উদ্ভিদ জগতের ক্ষেত্রেও সুষম বিকাশে বাধাপ্রাপ্ত হয়।

শব্দ দূষনের উৎপত্তি

সাধারন ভাবে মনুষ্য সমাজে শব্দ দূষণের অধিকাংশ তৈরী হয় যানবাহনের আওয়াজ,মেশিনের আওয়াজ সহ অন্যান্য আওয়াজে।দুর্বল নগর কেন্দ্রিক প্ল্যানিং এর ফল হল যথেচ্ছ শব্দ দূষণ।কলকারখানার আওয়াজ শব্দ দূষণের অন্যতম বাহক।মানব জীবন ও জন্তু জানোয়ারদের জীবনে অতিরিক্ত শব্দ দূষণ যথেচ্ছ ভাবে প্রভাব বিস্তার করে।ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় মাইকের আওয়াজ,যানবাহনের আওয়াজ শব্দ দূষণের মাত্রাকে বাড়িয়ে তোলে।নির্দিষ্ট আইন মেনে মাইক না বাজালে তা থেকে শব্দ দূষণ হয়।সমুদ্রের ক্ষেত্রে অসামরিক,বাণিজ্যিক জাহাজ,সামরিক জাহাজ চলাচল ও তাদের আওয়াজে শব্দ দূষণের মাত্রা বৃদ্ধি করে।এছাড়া তৈল উৎক্ষেপণ কেন্দ্রের আওয়াজও শব্দ দূষণের অন্যতম কারণ।যার ফলে সামুদ্রিক জীবন ক্ষয়ক্ষতির মুখে পড়ছে।